মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কার্যবিবরণী ও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত

উপজেলা পরিষদ
হরিরামপুর, মানিকগঞ্জ।
উপজেলা পরিষদের মাসিক সভার কার্য বিবরণী:

সভার নাম        :  উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা
তারিখ ও সময়         :  ২৯/০৬/২০১৪ খ্রি: বেলা: ১১.০০ ঘটিকা
স্থান            :  উপজেলা পরিষদ  মিলনায়তন।
সভাপতি        :  জনাব মোহাম্মদ সাইফুল  হুদা চৌধুরী।
               চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ
               হরিরামপুর, মানিকগঞ্জ।

সভায় উপস্থিত সদস্য ও কর্মকর্তাদের তালিকা পরিশিষ্ট ‌‍‍‍ক’ দ্রষ্টব্য।

সভাপতি উপস্থিত সকলকে স্বাগত জানিয়ে সভার কাজ শুরু করেন। অত:পর তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে সভা পরিচালনার অনুরোধ জানান।

আলোচ্য সূচি: ০১ পূর্ববর্তী সভার কার্য বিবরণী পাঠ ও অনুমোদন।

    সভায় বিগত ১৪/০৫/২০১৪ তারিখে  অনুষ্ঠিত সভার কার্য বিবরণী পাঠ করে শোনানো হয় এবং কোন সংশোধনী না থাকায় সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদিত হয়।    

বিভাগ ওয়ারী আলোচনা:

০১। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর: তার দপ্তরে বর্তমানে মাতৃত্বকালীন ভাতার কাজ চলছে। এছাড়াও অন্যান্য দাপ্তরিক কাজ সঠিক ভাবে পরিচালিত হচ্ছে।

০২। উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার: তাঁর দপ্তরের কাজ যথাযথ ভাবে  চলছে। সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

০৩। উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার: তার দপ্তরে ঋণ কার্যক্রম সঠিকভাবে চলছে।
০৪। উপজেলা মৎস অফিসার: উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা জানান যে, বর্তমানে বর্ষা মৌসুম হওয়া সত্বেও পদ্মা নদীতে পানি খুবই কম। যার দরুণ ছোট ছোট নদী নালা ও খাল বিলে পানি না থাকার কারণে মাছের উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে।

০৫। উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিসার: নির্বাচন ও পূজায় আমরা আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করি। নির্ধারিত দৈনিক ভাতা প্রদান করলে এলাকার চুরি ডাকাতি ঠেকাতে আমাদের সদস্য দিয়ে কাজ করানো যাবে।
০৬। উপজেলা সমন্বয়কারী একটি বাড়ি একটি খামার: তার দপ্তরের কাজ সঠিক ভাবে চলছে এবং উপজেলা পরিষদে একটি বাড়ী একটি খামার ভবনের কাজ চলছে।
০৭। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি: আমি এ উপজেলার পল্লী বিদ্যুতের প্রতিনিধি। এ উপজেলায় প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা বকেয়া রয়েছে। যা দীর্ঘদিন যাবত পরিশোধ করা হয়নি। আমাদের একটা টার্গেট আছে। এ উপজেলায় টার্গেট পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

০৯। উপজেলা প্রকৌশলী: উপজেলা প্রকৌশলী জানান যে, তার দপ্তরে নিম্নোক্ত প্রকল্পের আবেদন পাওয়া গিয়াছে।

 
ক্র:নং    প্রকল্পের নাম    ইউনিয়ন    মন্তব্য       
১    দড়িকান্দি গুচ্ছগ্রাম হতে জগন্নাথপুর সালামের বাড়ি পর্যন্ত বেড়িবাধে প্যালাসাইটিং ও সংস্কার করণ।     রামকৃষ্ণপুর           
২    আন্ধামানিক জিসি-রামকৃষ্ণপুর ইউপি সড়কে দড়িকান্দি ফজর আলীর বাড়ী হতে বাহিরচর  অভিমুখে রাস্তা ইটের সোলিং করণ। পার্ট-১    বয়ড়া           
৩    আন্ধামানিক জিসি-রামকৃষ্ণপুর ইউপি সড়কে দড়িকান্দি ফজর আলীর বাড়ী হতে বাহিরচর  অভিমুখে রাস্তা ইটের সোলিং করণ। পার্ট-২    বয়ড়া           
৪    পশ্চিম খলিলপুর/যাত্রাপুর ইছামতি নদীতে উপর বাশের ব্রিজ মেরামত    চালা           
৫    উজানপাড়া ঈদ গা মাঠে প্যালাসাইটিং    গোপীনাথপুর           
৬    ছোট বাহাদুরপুর আওয়ালের বাড়ি হইতে আ: মজিদ মল্লিকের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা মেরামত।     গোপীনাথপুর           
৭    মজমপাড়া বড় রাস্তা হইতে তমছের মুন্সির বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা মেরামত।    গোপীনাথপুর           
৮    বড় বাহাদুরপুর মোশারফ বেপারীর বাড়ি হইতে ইফসুফের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা মেরামত।    গোপীনাথপুর        

প্রকল্প নং-০১  প্রাক্কলিত অর্থ ১,০০,০০০/- টাকা, উপজেলা উন্নয়ন তহবিল।
দড়িকান্দি গুচ্ছগ্রাম হতে জগন্নাথপুর সালামের বাড়ি পর্যন্ত বেড়িবাধে প্যালাসাইটিং ও সংস্কার করণ।
প্রকল্প কমিটি:
১। মো: সিকিম আলী            ইউপি সদস্য                সভাপতি
২। মো: ফারুক হোসেন            সমাজ সেবক                সেক্রেটারী
৩। মো: হোসেন আলী            গন্যমান্য ব্যক্তি                সদস্য
৪। মো: রহম আলী            ঐ                    সদস্য
৫। মো: লাল মিয়া            ঐ                    সদস্য


প্রকল্প নং-০২ প্রাক্কলিত অর্থ ১,০০,০০০/- টাকা, উপজেলা উন্নয়ন তহবিল।
আন্ধামানিক জিসি-রামকৃষ্ণপুর ইউপি সড়কে দড়িকান্দি ফজর আলীর বাড়ী হতে বাহিরচর  অভিমুখে রাস্তা ইটের সোলিং করণ। পার্ট-১
প্রকল্প কমিটি:
১। মো: আবুল বাশার সবুজ        উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান            সভাপতি
২। আব্দুল আওয়াল সিদ্দিকী        সমাজ সেবক                    সেক্রেটারী
৩। হাজী ওবায়দুর রহমান বাবুল        গন্যমান্য ব্যক্তি                    সদস্য
৪। ওমর ফারুক সাগর            ঐ                        সদস্য
৫। মো: মিজানুর রহমান মিরাজ        ঐ                        সদস্য
প্রকল্প নং-০৩ প্রাক্কলিত অর্থ ১,০০,০০০/- টাকা, উপজেলা উন্নয়ন তহবিল।
আন্ধামানিক জিসি-রামকৃষ্ণপুর ইউপি সড়কে দড়িকান্দি ফজর আলীর বাড়ী হতে বাহিরচর  অভিমুখে রাস্তা ইটের সোলিং করণ। পার্ট-২
প্রকল্প কমিটি:
১। মো: জাহিদুর রহমান তুষার        চেয়ারম্যান, বয়ড়া  ইউপি            সভাপতি
২। সিদ্দিকুর রহমান রাজু            সমাজ সেবক                    সেক্রেটারী
৩। আলতাফ হোসেন            গন্যমান্য ব্যক্তি                    সদস্য
৪। আ: ওহাব মিয়া            ঐ                        সদস্য
৫। মোজাফফর হোসেন            ঐ                        সদস্য
প্রকল্প নং-০৪ প্রাক্কলিত অর্থ ৪২,২০০/- টাকা, উপজেলা উন্নয়ন তহবিল।
পশ্চিম খলিলপুর/যাত্রাপুর ইছামতি নদীর উপর বাশের ব্রীজ নির্মাণ।
প্রকল্প কমিটি:
১। মো: সাইফুল ইসলাম            সমাজ সেবক                সভাপতি
২। মো: ইদ্রিস আলী            গন্যমান্য ব্যক্তি                সেক্রেটারী
৩। মো: আ: জলিল            গন্যমান্য ব্যক্তি                সদস্য
৪। মো: সাহজাহান            ঐ                    সদস্য
৫। মো: সাইদুল ইসলাম            ঐ                    সদস্য

প্রকল্প নং-০৫ প্রাক্কলিত অর্থ ১২,৫০০/- টাকা, উপজেলা উন্নয়ন তহবিল।
উজানপাড়া ঈদ গা মাঠে প্যালাসাইটিং
প্রকল্প কমিটি:
১। মো: আ: বাতেন শিকদার        সমাজ সেবক                সভাপতি
২। মো: দেলোয়ার হোসেন            গন্যমান্য ব্যক্তি                সেক্রেটারী
৩। মো: ইসলাম উদ্দিন খান        গন্যমান্য ব্যক্তি                সদস্য
৪। মো: হাবেজ উদ্দিন             ঐ                    সদস্য
৫। মো: আবেদ আলী            ঐ                    সদস্য

 মন্তব্য:  ক্রমিক নং ৬-৮নং পর্যন্ত  প্রকল্পগুলি আগামী মাসিক সভায় উত্থাপন করার  এবং ১-৫নং প্রকল্পগুলো নিম্নোক্ত প্রকল্প কমিটির মাধ্যমে উপজেলা উন্নয়ন তহবিলের অর্থ দ্বারা বাস্তবায়নের জন্য সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।  

১০। চেয়ারম্যান কাঞ্চনপুর : চরাঞ্চলে কাবিটার শেষের কিস্তির অর্থ দিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। পানিতে এলাকা সয়লাব কাজ এসেছে জুন মাসে। অথচ মানিকগঞ্জ নিচু এলাকা। বিষয়টি মন্ত্রণালয়কে অবহিত করার অনুরোধ জানান। তিনি উপজেলা নির্বাহী মহোদয়কে উপজেলা পরিষদের রাজস্ব তহবিল হতে উপজেলায় ব্যবহারের জন্য আইনগত ভাবে একটি মটর সাইকেল ক্রয়ের ব্যাপারে অনুরোধ করেন। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রয়ণের জন্য বাজেট রাখতে হবে। নদীর তীরবর্তী এলাকায় চুরি, ডাকাতি হচ্ছে। এ সমস্ত এলাকায় পাহারার প্রয়োজন। প্রত্যেক ইউনিয়নে কয়েকটি করে টর্চলাইট ও বাশির প্রয়োজন। এটি প্রকল্পের মাধ্যমে করা সম্ভব। ইউপি চেয়ারম্যানদের আগ্নেয়আস্ত্রের লাইসেন্স প্রদানের ব্যাপারে জেলা কমিটিতে উপস্থাপনের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়কে অনুরোধ করেন।

১১। চেয়ারম্যান বলড়া: দানিস্তপুর হতে পিপুলিয়া যাওয়ার রাস্তাটি পুরোপুরি বেহাল অবস্থা হয়ে পড়েছে। রাস্তা দিয়ে রিক্সা, ভ্যান, সাইকেল চলাচল করতে পারেই না মানুষ চলাচল করতে গেলে কয়েকবার হোচট খেতে হয়। এ ব্যাপারে ১% হতে দানিস্তপুর-পিপুলিয়া রাস্তাটি মেরামত করার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

১২। চেয়ারম্যান হারুকান্দি ইউপি: প্রত্যেক ইউপি চেয়ারম্যানকে বাজেটের একটি করে কপি দেওয়ার জন্য সভাকে অনুরোধ জানান। হল রুমের জন্য একটি মাইক সেট ৭০,০০০/- (সত্তর হাজার) টাকা দিয়ে কিনে দেই। বর্তমানে কি অবস্থায় আছে জানি না।কয়েক মিটিং ধরে আমি লক্ষ করছি মিটিং-এ মাইকের ব্যবস্থা রাখা হয় না। আগামী মিটিং –এ মাইক রাখার জন্য অনুরোধ জানন।

১৩। চেয়ারম্যান চালা ইউপি: চালা-যাত্রাপুর আরসিসি কলামের উপর ব্রিজটির কাঠ ভেংগে গেছে জরুরী ভিত্তিতে মেরামত করার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

১৪। চেয়ারম্যান লেছড়াগঞ্জ ইউপি: চরাঞ্চলের মানুষের মধ্যে প্রতিনিয়তই জমিজমা ও বিবিধ বিষয় নিয়ে মারামারি করে  আহত হয়ে উপজেলা সদর হাসপাতালে রোগী ভর্তি থাকে । এ ব্যাপারে থানায় মামলা করতে গেলে মেডিকেল সার্টিফিকেটের প্রয়োজন হয়। তখন মেডিকেলের সার্টিফিকেট আনতে গেলে ডাক্তারগণ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে  দেরী করে। এতে চরাঞ্চলের জনগণের সুবিচার পেতে সমস্যা হয়।

১৫। চেয়ারম্যান বয়ড়া: উপজেলা পরিষদের কোন সদস্য বা সদস্যের আত্মীয় উপজেলায় ঠিকাদারী করতে পারবে না। তবে আমার ভাই ভাতিজা কি কোন ঠিকাদারী কাজ করতে পারবে না মর্মে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবগত করেন এবং মাটির অভাবে বয়ড়া ইউনিয়নের কাবিটার কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি বলে জানান।  


১৬। চেয়ারম্যান রামকৃষ্ণপুর ইউপি: তিনি জানান যে বর্তমানে পদ্মা নদীতে তার ইউনিয়নের রামকৃষ্ণপুর, জগন্নাথপুর, বকচর গ্রামে নদী ভাংগন দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েক হাজার বিঘা জমি পদ্মা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তা/মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়কে অনুরোধ জানান।




১৭। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান: উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জানান রমজানের আগে এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ সভা। কাবিটা বা কাবিখা প্রকল্পের টাকা ফেরত গেলে আগামী বাজেটে টাকা খুবই কম আসবে। বরাদ্দকৃত অর্থ

যাতে সঠিকভাবে প্রকল্পে ব্যয় করা হয় সে ব্যপারে খেয়াল রাখার জন্য ইউপি চেয়ারম্যারনগণকে অনুরোধ জানান। উপজেলা পরিষদের প্রবেশমুখের মন্দিরটি স্থানান্তর করে পরিষদের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। তিনি আরও জানান আমার বাড়ি বয়ড়া ইউনিয়নে কিন্তু কাদার কারণে হেঁটে বাড়ি যাওয়া যায় না, ব্রিক সোলিং প্রয়োজন।  মেডিকেল রির্পোট সময়মত না দেয়ার কারণে অনেক মামলা ঝুলে আছে। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে অনুরোধ জানান। পরিষদের বিদ্যুতের অবস্থা খুবই নাজুক এ বিষয়ে জেলা কমিটিতে উত্থাপন করার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়কে বিশেষভবে অনুরোধ জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান যে, পবিত্র রমজান উপলক্ষে নিতৃপ্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যের মূল্য স্থিতিশীল এবং ফরমালিন প্রতিরোধে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ফরমালিন কিটস দিয়ে পরীক্ষা করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সভায় উল্লেখ করেন যে, ন্যাশনাল আইসিটি ইনফ্রা নেটওয়ার্ক ফর বাংলাদেশ গভর্নমেন্ট ফেজ-২ (ইনফো সরকার) প্রকল্পের অধীনে মেরিনা কম্পিউটার এর মাধ্যমে উপজেলা পর্যায়ে মো: লাবলু মিয়া, পিতা-মো: আলাউদ্দিন, গ্রাম-দিয়াপাড়, ডাকঘর- যাত্রাপুর, উপজেলা- হরিরামপুর, জেলা- মানিকগঞ্জ-কে টেকনিশিয়ান গত ০৪/০৫/২০১৪ ইং তারিখে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

তিনি দু:খের সহিত আরও জানান যে, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জনাব কামরুন্নাহার মুন্নি উপজেলা পরিষদের কোন সভায় উপস্থিত হয় না।
তিনি কোন দিন অফিসও করেন না। কদাচিৎ দু এক দিন অফিসে এসে সকল কর্মকর্তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন। উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপেজলা নির্বাহী অফিসারের সাথেও তিনি খারাপ আচরণ করেন। অকথ্য ভাষায় কথা বলেন। উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং সকল ইউপি চেয়ারম্যানসহ তাঁর এহেন অসাধাচরণ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের সকল সদস্য তাঁর আচরণে অতিষ্ঠ। উপস্থিত সকলে তাঁর বিরুদ্ধে জরুরী ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তাব করেন।
পরিশেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপজেলা পরিষদের ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরের নিম্নরূপ বাজেট সভায় উপস্থাপন করেন।

সভাপতি সাহেব জানান যে, রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করে কাজ করতে হবে। সঠিক সময়ে কাজ শেষ না করার কারণে কাবিটা প্রকল্পের টাকা ফেরৎ যাবে এটা হরিরামপুর বাসীর জন্য অত্যন্ত দু:খজনক। এমনিতেই টাকা বরাদ্দ পাওয়া যায় না। প্রকল্পের কাজগুলো বাস্তবায়ন করার
১০

তাগিদ দিতে হবে। প্রকল্পের টাকা যাতে ফেরৎ না যায় সে ব্যাপারে লক্ষ্য রাখতে হবে। ঝিটকা হাটের টোল রেট ইজারাদাকে টাঙ্গানোর জন্য গালা চেয়ারম্যানকে অনুরোধ করেন। এটা হলে এলাকাবাসী উপকৃত হবেন। ফরমালিন কিটস দিয়ে খাদ্যদ্রব্য ও ফলমূল পরীক্ষা করা হবে।
নিতৃপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য সকল ইউপি চেয়ারম্যান মনিটরিং করবেন। চুরি ডাকাতির সমস্যা ঠেকাতে, জ্বালানীর সমস্যা সমাধানের জন্য বিশেষ অর্থের মাধ্যমে জ্বালানী মুজদ রাখা প্রয়োজন। প্রতিটি ইউনিয়নে কমিটি করে লাইট ও বাশি রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতিটি ইউপিতে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে মিটিং এর ব্যবস্থা করতে হবে। বর্তমান সরকারের অধীনে ১০ হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়েছে। কিন্তু ঐ বিদ্যুৎ কোথায়? শিবালয় উপজেলাধীন ঘোনাপাড়া সাবেক এমপি আব্দুর রউফ খানের বাসায় বর্বরোচিত হামলার তীব্র নিন্দাসহ প্রকৃত দোষীদের শাস্তির দাবী জানান।

পরিশেষে সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।


 
    মোহাম্মদ সাইফুল হুদা চৌধুরী
চেয়ারম্যান
উপজেলা পরিষদ
হরিরামপুর, মানিকগঞ্জ।    

স্মারক নং- ০৫.৩০.৫৬.২৮.০০.০০৬.০১.১৪-৩৬২                                     তারিখ: ২৯/০৬/২০১৪  খ্রি:
    সদয় অবগতির জন্য অনুলিপি প্রেরণ :
১। মাননীয়  সংসদ সদস্য, ১৬৯ মানিকগঞ্জ-২, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ।
২। সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ, বাংলাদেশ  সচিবালয়, ঢাকা।
৩। কমিশনার, ঢাকা বিভাগ, ঢাকা।
৪। জেলা প্রশাসক, মানিকগঞ্জ।
৫। মেয়র, মানিকগঞ্জ পৌরসভা, মানিকগঞ্জ।
৬। ভাইস  চেয়ারম্যান (পুরুষ/মহিলা), উপজেলা পরিষদ, হরিরামপুর।
৭। চেয়ারম্যান………………………………. ইউনিয়ন পরিষদ।
৮। বিবিধ।
 
     রুবিনা ফেরদৌসী
উপজেলা নির্বাহী অফিসার
হরিরামপুর, মানিকগঞ্জ।